January 16, 2012

১৫-০১-২০১২ : বিচ্ছিন্ন দিনলিপি (কৌতুক এবং একটি পাগলামির খতিয়ান)

ডিজিটাল এক্সপো, সাদা ভাষায় "কম্পিউটর মেলা", জুনিয়র এক কলিগ বায়না ধরেছে লাঞ্চ ব্রেকে যাবে এবং আমাকে সাথে নিয়ে যাবে। তাই গিয়ে হাজির হলাম আজ দুপুরে। কলিগের বয়স টেনেটুনে ২২/২৩, আমাকে মেলাতে ঢুকিয়ে দিয়ে কিছুক্ষন আশেপাশেই ছিলো, আমি যখন একটা সফটওয়র ফার্মের স্টলে গিয়ে একটা কাস্টমাইজড সফটওয়র নিয়ে ক্যাঁচাল শুরু করেছি, বেটা ওমনি গায়েব। কিছুক্ষন পরে দেখে বাছাধন আসছে, চোখদুটো পারলে ৩৬০ ডিগ্রী ঘোরাতে ঘোরাতে। ঘটনা কিছু না, বয়সের দোষ আরকি ;) স্টলে স্টলে বসা সুন্দরীদের দিকে রসগোল্লা সাইজের চোখ নিয়ে দেখছে। এরপরে এগোলাম আরেক স্টলে, কিছু কেনাকাটা করতে। 

"দেখেন দেখনে ঐ মেয়েটা! কি সুন্দর দেখেন!" - কলিগের উত্তেজিত স্বর।
"বয়স নাই রে ভাই, বুড়া বয়সে এত সৌন্দর্য্য দেখতে গেলে হার্ট এটাক খাওনের চান্স আছে" - ফাজলামি করে গম্ভীর গলায় জবাব দিলাম।

ফিক ফিক করে একটা চাপা হাসির শব্দ, দেখি এক মেয়ে আমাদের ঠিক পাশের স্টল থেকে মুখে হাত চাপা দিয়ে হাসিতে ফেটে পড়েছে আমাদের দিকে তাকিয়ে। বোঝা গেলো, শুনেছে সবটাই।
মুখে একটা বিরস ভরিক্কি ভাব নিয়ে সোজা হন হন হাঁটা দিলাম কলিগের হাত টেনে।

"আপনার সাথে মেলায় আসা ফুল লস প্রজেক্ট" - ভচকা মুখ করে সিগ্রেট ধরাতে ধরাতে কলিগের মন্তব্য, মেলার বাইরে, সিগ্রেটের দোকানে এসে। 


দুপুরের একটু পরে, একটা মানুষকে নিয়ে যাচ্ছে কয়েকজন, শেঁকলে আঁটোসাঁটো করে বেঁধে। না, আসামী নয়, আমাদের ভাষায় "পাগল", বিশেষজ্ঞদের ভাষায় "মানসিক ভাবে অসুস্থ্য" একজন মানুষ। লোকটা এক নাগাড়ে খিস্তি খেউড় করছে, যতটা সম্ভব যুঝছে এঁটে বসা বাঁধনের সাথে, মুক্ত হতে চায়। 

ঘটনা খুব সিম্পল, টাকার শোকে "পাগল" বেচারা। কেউ টাকা মেরেছে? না। সম্পত্তি হাতছাড়া? তাও না। তবে ঘটনা কি? কৌতুহল জাগে। 

আত্মীয়দের সাথে কথা বলে জানতে পারলাম, লোকটা কৃষান। একটা মোবাইলও আছে তার। মোবাইলে কয়েকদিন আগে ফোন এসেছিলো। যে লোকটা ফোন করেছিলো সে ঐ কৃষানকে জানায় ঐ কৃষান নাকি বাংলালিংক এর লটারীতে ১৯ লাখ ৯৫ হাজার টাকা জিতেছে, পেতে হলে রেজিস্ট্রেশন হিসেবে পাঁচ হাজার টাকা এক্ষুনি টপআপ করে দিতে হবে (ওদের ভাষায় "ফেলেকজি" করতে হবে)। প্রমান হিসেবে লটারিওলা লোকটা নাকি কৃষানকে তার ঠিকানা আর এলাকার নামধাম সবই বলেছে (আত্মীয়দের কথা, বাংলালিংকের লোক না হলে এসব জানলো কোথায়?)। 

টাকা "ফেলেকজি" করার কয়েকদিন পরেও যখন লটারির টাকা পাওয়া যায় নি, লোকটা হঠাৎ করেই "পাগলামো" শুরু করে। গোপালগঞ্জ থেকে তাই বেঁধে এখানে আনা হয়েছে, ডাক্তার দেখাতে। 

(এরকম একটা ঘটনা আমারো আছে, এক মামীকে ফোন করে প্রায় কনভিন্স করে ফেলেছিলো, আমি মামীর ফোনটা হাতে নিয়ে লোকটাকে কিছু প্রশ্ন শুরু করার পর লাইন কেটে যায়, পরে নম্বরটাও বন্ধ হয়ে যায়। ঐ লোকটা মামীকে এবং আমাকে মামীর কানেকশনের ডিটেইল হিস্ট্রী, এফএনএফ, ঠিকানা, কোন দোকান থেকে নম্বরটা কেনা, কত সালে কেনা, গত কায়েকমাসে কবে কত বিল দেওয়া হয়েছে এই সবই বলেছিলো ঠিক ঠিক।)

Disqus for Simple thoughts...