September 2, 2013

৯২ বছর বয়সী নাৎসিকে আদালতে তোলা হচ্ছে

০১:৫৯, সেপ্টেম্বর ০২, ২০১৩, প্রথম আলো


দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় যুদ্ধাপরাধের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে জার্মানিতে আটক নাৎসি সিয়ার্ট ব্রুইনসকে (৯২) আজ সোমবার আদালতে হাজির করা হবে। সাবেক এই এসএস কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ১৯৪৪ সালের সেপ্টেম্বরে একজন ডাচ প্রতিরোধ যোদ্ধাকে হত্যা করার অভিযোগ আনা হয়েছে।

ঘটনার প্রায় ৭০ বছর পর ডাচ বংশোদ্ভূত জার্মান নাগরিক ব্রুইনসকে পশ্চিম জার্মানের হ্যাগেন নগরের একটি আদালতে তোলা হচ্ছে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে তাঁর যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হতে পারে।

নবতিপর বৃদ্ধ ব্রুইনসের সঙ্গে তাঁর এক সঙ্গীর বিরুদ্ধেও অ্যালডার্ট ক্লাস ডিজকেমা নামের ওই ডাচ যোদ্ধাকে একটি কারাগারে গুলি করে হত্যার অভিযোগ আনা হয়েছে। এরই মধ্যে ব্রুইনসের ওই সঙ্গী মারা গেছেন। ব্রুইনসের বিরুদ্ধে ক্লাসকে চার বার গুলি করার অভিযোগ আনা হয়েছে। ব্রুইনস ঘটনাস্থলে থাকার কথা স্বীকার করলেও গুলি করার কথা অস্বীকার করেছেন।

দখলদার জার্মান বাহিনী নেদারল্যান্ডস অধিকারের সময় যে ৩০ হাজার ‘বিশ্বাসঘাতক’ ডাচ নাগরিক নাৎসিদের সহায়তা করেছিল ব্রুইনস তাঁদের অন্যতম।

বিশ্বযুদ্ধে জার্মানির তৃতীয় রাইখের পতনের পর ১৯৪৯ সালে নেদারল্যান্ডসে ব্রুইনসের অনুপস্থিতিতে তাঁর বিচার হয়। এতে তাঁকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়। পরে শাস্তি কমিয়ে যাবজ্জীবন দেওয়া হয়। তবে নেদারল্যান্ডস ব্রুইনসকে দেশে ফিরিয়ে আনতে ব্যর্থ হয়।

যুদ্ধাপরাধের সঙ্গে জড়িত নাৎসিদের বিচারের মুখোমুখি করার দায়িত্বে থাকা কর্তৃপক্ষের তথ্য অনুসারে, ১৯৪৫ থেকে ১৯৪৬ সালের ন্যুরেমবার্গ বিচারের পর থেকে প্রায় এক লাখ ছয় হাজার নাৎসি সদস্যের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ আনা হয়। এর মধ্যে ১৩ হাজার দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন এবং তাঁদের অর্ধেককে সাজা দেওয়া হয়েছে। আর ব্রুইনসকে শেষ নাৎসি যুদ্ধাপরাধী বলে ধারণা করা হচ্ছে। এএফপি।



Disqus for Simple thoughts...