December 27, 2017

Atheist Bangladesh ফেসবুক গ্রুপ বিষয়ক

আজ এথিস্ট বাংলাদেশ ফেসবুক গ্রুপে একটা পোস্ট পেলাম মিথিলা আক্তার মৌ নামের একজ নতুন সদস্য গ্রুপমেম্বারদের কাছে প্রশ্ন চাইছে "আমার এক ফ্রেন্ড আজকে নাকি লজিক দিয়ে প্রুভ করে দিবে Allah/God আছেন। আপনারা সবাই আপনাদের লজিক্যাল কোয়েশ্চিন গুলো কমেন্টে দিন। আপনাদের সেই প্রশ্নগগুলো আজ আমি তাকে করব। দেখি সে কিভাবে সবগুলোর লজিক্যাল উত্তর দেয়।" লিখে।
 


খানিক পরে তাড়া আসছে কমেন্ট আকারে


"আমাদের আলোচনা চলছে। সবাই তাড়াতাড়ি প্রশ্ন করুন । আমি আমার প্রশ্নের সাথে আপনাদের প্রশ্নগুলিও করব তাকে।"

বিষয়টা হলো, সে প্রশ্ন কালেক্ট করছে অথচ সেই প্রশ্ন গুলির কোন জবাবেরই আপডেট নেই! এই অবস্থায় তার সেই বন্ধুকে ফেসবুকের গ্রুপে আনতে বলার পর ওভার একটিভ হলো "Saikat Mondol "। ব্যাপারটা এমন, আপনি প্রশ্ন করলেন একজনকে আর জবাবী লড়াই শুরু করল আরেকজন এবং পিছলানির সাথে!






আরও মজা, Saikat Mondol জ্ঞান দিতে আগ্রহী হলেন, আবার আমি সেই জ্ঞান নিতে সম্মত হলে উল্টো প্রশ্ন! অবশ্য শেষমেষ তিনি কিছু জ্ঞান দিয়েছেন। এই পর্যায়ে মিথিলা আক্তার মৌ এর ফেসবুক ইউআরএল এ রতন দাস দেখে সেখানেই জানতে চাইলাম ঘটনা কি, জবাবে পেলাম কিছু বুলশিট।


এমনিতেই বাংলাদেশে অবস্থানকারী নাস্তিকদের পেছনে লেগে আছে সরকার আর সরকারী কালাকানুন ৫৭ ধারা। যাস্ট ১ দিন আগে এয়ারপোর্ট থেকে এরেস্ট হয়েছে আসাদ নূর - সতর্ক হওয়াই বাঞ্ছনীয় - তাই গ্রুপে পোস্ট করলাম সন্দেহের কথা, গ্রুপের মডারেশন অনুসারে সেই পোস্ট পেন্ডিং থাকল ঘন্টা খানেক, তারপর সেই পোস্ট পেন্ডিং থেকে উধাও!



এর মানে একটাই, যে গ্রুপে পোস্ট এডমিন/মডারেটরের পারমিশন ছাড়া পাবলিশ হয় না সেখানে এমন একখানা সন্দেহ জনক আইডির এলোপাথাড়ি ডাটা কালেকশন পোস্ট পাবলিশ হয় কিভাবে! আবার সন্দেহজনক রিপোর্ট পোস্টও মডারেশনে পড়ে গায়েব!




এথিস্ট বাংলাদেশ গ্রুপের এডমিন খুব সম্ভবতঃ হিটখোরী কৈরা এই ১ দিনের মেম্বার গুলারে মাথায় তুলতাছে, এতে তার/তাদের কিছু হিট/ট্রাফিক আসতে পারে, দিনশেষে ক্ষতি নাস্তিকদেরই।


মিথিলা আক্তার মৌ ওরফে রতন দাস/সৈকত মন্ডল (সবগুলাই ফেক প্রফাইল)


Disqus for Simple thoughts...